থ্যালাসেমিয়া পার্ট ৪ঃ প্রতিরোধ

এ পর্যন্ত আমরা থ্যালাসিমিয়া কিভাবে হয়, কাদের হতে পারে, কি লক্ষণ, কি চিকিৎসা এগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি। এটা হবে এ বিষয়ে আপাতত আমাদের শেষ প্রবন্ধ। এবারের বিষয় কিভাবে এই থ্যালাসিমিয়া প্রতিরোধ করা সম্ভব।

Read more

থ্যালাসেমিয়া পার্ট ৫ঃ খাবারের তালিকা

থ্যালাসিমিয়া রোগীর খাবার নিয়ে সব সময়ই চিন্তা থাকে, রোগী এবং তার বাবা-মায়ের। এটা বাংলাদেশের সাধারণ খাবারগুলো একটা তালিকা। এই তালিকা অনুসরণ করে চললে আশা করি রোগী ভালো থাকবে।

যে সমস্ত খাবারে অধিক পরিমাণ লৌহ (High Iron Diet) আছে, সেই সমস্ত খাবার অবশ্যই পরিহার করবে এবং যে সমস্ত খাবারে কম পরিমাণ লৌহ ( Low Iron Diet) আছে, সেই সমস্ত খাবার খেতে হবে। তাই থ্যালাসিমিয়া রোগীরা কোন ধরনের খাবে তা নীচের খাদ্য তালিকা থেকে কম লৌহ যুক্ত খাবার বেছে নিবে।

Read more

থ্যালাসেমিয়া পার্ট ৩ঃ খাবার ও প্লীহাকর্তন (splenectomy)

থ্যালাসেমিয়া সংক্রান্ত ৫টি প্রবন্ধের সিরিজের এটি ৩য় অংশ। এখানে থ্যালাসেমিয়া রোগীর খাবার ও চিকিৎসার অংশ হিসেবে প্লীহাকর্তন (splenectomy) নিয়ে আলোচনা করবো। আগের অংশ গুলো পড়তে চাইলে নিচের পছন্দের লিংকে ক্লিক করুন।

থ্যালাসিমিয়া রোগীর খাবার হচ্ছে মূল চিকিৎসার অংশ। রোগীকে সারাজীবন খাবারের নিয়মগুলো মেনে চলতে হয়। আর প্লীহা কর্তন হচ্ছে শেষ উপায়ের মত। এই প্রবন্ধে খাবার এবং প্লীহা কর্তন সম্পর্কে আলোচনা করেছি। কোন প্রশ্ন থাকলে মন্তব্য করবেন। উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব।

Read more

থ্যালাসেমিয়া পার্ট ১ঃ একটি জন্মগত/বংশগত রক্তস্বল্পতা

থ্যালাসেমিয়া কি?

থ্যালাসিমিয়া রক্তের একটা রোগ। এ রোগ হলে রক্তের লোহিত রক্ত কনিকার ভেতরে থাকা একটা অনু, হিমোগ্লোবিন সঠিকভাবে তৈরী হয় না। হিমোগ্লোবিন রক্তে অক্সিজেন পরিবহনের মূল মাধ্যম। হিমোগ্লোবিন ঠিকভাবে তৈরী না হলে রক্তের লোহিত রক্ত কনিকা ভেংগে যায়।

এই রোগ কাদের হয়?

এই রোগ যেকোন ব্যক্তির হতে পারে। ছেলে বা মেয়ে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বাবা-মা এর থেকে জন্মগত ভাবে পায়। কখনো কখনো নতুন ভাবে হতে পারে। অনেকে এজন্য বাবা বা মাকে দায়ী করেন। কিন্তু এটা সত্য নয়।

এই রোগে কি সমস্যা হয়?

রক্তের লোহিত রক্ত কনিকা ভেংগে যাওয়ার ফলে কয়েকটি ঘটনা ঘটে-

১। রক্তে লোহিত রক্ত কনিকা কমে যায়। ফলে, রক্তে অক্সিজেন পরিবহন করার ক্ষমতা কমে যায়।

এর ফলে বাচ্চার গায়ের রঙ আস্তে আস্তে সাদা হয়ে যায়, বাচ্চা দুর্বল বোধ করে, খাওয়া-দাওয়া বা খেলাধূলা কমিয়ে দেয়। বাচ্চার বৃদ্ধিও কমে/থেমে যায়।

২। শরীর বেশি বেশি রক্ত কনিকা তৈরী করার চেষ্টা করে। ফলে, যে সকল হাড়ে রক্ত তৈরী হয় সেগুলোর আকার পরিবর্তন হয়, চেহারা পরিবর্তন হয়। অনেক সময় হাড় ভেংগেও যায়।

Changes in RBC of a thalassemia patient.

৩। হাড় দিয়ে না প্রয়োজন পুরণ না হলে অন্যান্য অংগ যেমন- কলিজা(Liver), প্লীহা (Spleen) ইত্যাদি এই কাজে ব্যবহার হয়। ফলাফল, পেটে চাকা তৈরী হয়, যা আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে এবং খাওয়ায় সমস্যা, ব্যথা ও অন্যান্য অনেক সমস্যা তৈরী করে।

৪। রক্ত ভেংগে অনেক বিষাক্ত পদার্থ রক্তে চলে আসে। এর মধ্যে প্রধান হল লোহা (iron) এবং বিলিরুবিন (bilirubin)। এই লোহা শরীরে বিভিন্ন অংশে জমা হয়ে জটিলতা তৈরী করে আর বিলিরুবিন অতিরিক্ত হলে জন্ডিস দেখা দেয়।

এগুলো ছাড়াও আরো অনেক সমস্যা তৈরী হয় যার ফলে স্বাভাবিক জীবন চালানো রোগীর জন্য অসম্ভব হয়ে পড়ে।

এই রোগ কয় ধরনের হয়?

লক্ষণের তীব্রতার উপর ভিত্তি করে থ্যালাসিমিয়াকে তিন ধরনে ভাগ করা হয়-

১। গুরুতর/তীব্র থ্যালাসেমিয়া 

২। মাঝারি তীব্র থ্যালাসেমিয়া

৩। মৃদু থ্যালাসেমিয়া

এই রোগটা কিভাবে প্রকাশ পায়?

প্রকাশ করার সময় নির্ভর করে থ্যালাসিমিয়ার ধরনের উপর। তীব্র হলে সাধারণত রোগটি ২ বছরের আগে প্রকাশ পায়। আর মাঝারি তীব্র হলে আরো দেরিতে প্রকাশ পায়। আর, যদি মৃদু হলে প্রকাশই পায় না। এ ধরনের থ্যালাসিমিয়া ঘটনাক্রমেই সাধারণত ধরা পড়ে।

প্রথম দিকে সাধারণ দুর্বলতা, ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া, খেলাধুলা না করা ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। অনেক ক্ষেত্রে বার বার কাশি বা শ্বাসকষ্ট নিয়েও বাচ্চা হাসপাতালে আসতে পারে।

থ্যালাসিমিয়া আছে এমন সন্দেহ হলে কি করা উচিত?

প্রথমেই একজন শিশু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়া উচিত। সাধারণ কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা করেই এ রোগ সনাক্ত ও নিশ্চিত করা সম্ভব।

আগামী নিবন্ধগুলোতে চিকিৎসা ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করার আশা রাখি। আপনাদের কোন প্রশ্ন থাকলে মন্তব্য করুন। চেষ্টা করব যথাযথ উত্তর দিতে।

এই বিষয়ে আমাদের অন্য প্রবন্ধগুলো দেখতে পারেন-