শিশুকে মায়ের দুধ কিভাবে খাওয়াবেন?

সর্বশেষ সম্পাদনা: ৫ ডিসেম্বর ২০২১, দুপুর ১২:০৫

মায়ের বুকের দুধ শিশুর জন্য সর্বোত্তম খাবার। এর মধ্যে শিশুর জন্য প্রয়োজন অনুযায়ী সমস্ত খাদ্য উপাদান থাকে। কিন্তু অনেক সময়ই শিশু জন্মের পর মায়ের বুকের দুধ পায় না। সঠিক পদ্ধতি অনুসরণ না করাই এর মূল কারণ। বিশেষ করে নতুন মায়েদের এই সমস্যা বেশি হয়। একারণে নবজাতকের কোলে নেয়ার (position) এবং বুকে দেয়ার পদ্ধতি(Attachment) অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

শিশুকে দুধ খাওয়ানোর সময় বাচ্চাকে কিভাবে কোলে নিবেন?

বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় শিশুকে সঠিকভাবে কোলে নিতে হয়। অন্যথায় শিশুর মধ্যে পড়ে যাওয়ার ভয় কাজ করে বা অন্য কারণে অস্বস্তিতে ভোগে এবং নিশ্চিন্তে দুধ খেতে পারে না। নিচের ছবিতে দেখুন কিভাবে এই মা তার নবজাতককে কোলে নিয়েছেন। এটাই সঠিক পদ্ধতি। সঠিক পদ্ধতিতে নিচের বিষয়গুলো বজায় থাকে।

১। শিশুর মাথা মায়ের কনুইএর ভাজে থাকে।
২। শিশুর পাছা মায়ের হাতের তালুতে থাকে।
৩। শিশুর মাথা, পিঠ ও পাছা একই লাইনে থাকে এবং শিশুর শরীর মায়ের শরীরের সাথে লাগানো থাকে।
৪। মা শিশুর পুরো শরীরকে ধরে থাকে।
৫। দুধ খাওয়ানোর সময় শিশুর মুখ মায়ের স্তনের কাছে থাকে।
৬। শিশুর নাক মায়ের স্তনের বোটার ঠিক বিপরীতেই থাকে। যেন সহজেই শিশু মুখে নিয়ে নিতে পারে।

কিভাবে বাচ্চাকে মায়ের বুকে দিবেন?

কোলে নেয়ার পর গুরুত্বপুর্ণ হলো শিশুকে কিভাবে বুকে দেয়া হচ্ছে সেটা। সঠিক নিয়ম বুকে দিলে শিশু সহজে ও পর্যাপ্ত পরিমানে বুকের দুধ পায়।

১। শিশুর থুতনি মায়ের স্তনে লাগানো থাকবে।
২। শিশুর মুখ বড় করে হা করে থাকবে।
৩। শিশুর নিচের ঠোঁট বাইরের দিকে উল্টানো থাকবে।
৪। স্তনের উপরের কালো অংশ নিচের অংশের চেয়ে বেশি দেখা যাবে।

নিচের ছবিতে দেখুন

১। শিশুর থুতনি মায়ের স্তনের সাথে লাগানো আছে।
২। শিশুর মুখ বড় করে হা করে আছে।
৩। শিশুর নিচের ঠোঁট বাইরের দিকে উল্টানো আছে। যদিও এই ছবিতে এটা স্পষ্ট না। তবে, সঠিক নিয়মে বুকে দিলে এমনটাই হওয়ার কথা।
৪। স্তনের এরিওলা বা কালো অংশের দিকে লক্ষ্য করলে বোঝা যাবে উপরের কালো অংশ নিচের অংশের চেয়ে বেশি দেখা যাচ্ছ।

 

কিভাবে বুঝবেন শিশু বুকের দুধ পাচ্ছে কিনাঃ

শিশু বুকের দুধ পেলে সাধারনত শান্তভাবে খেতে থাকে। অনেক সময় হাত-পা নেড়ে খেলাধুলাও শুরু করে দেয়। অনেক সময় শিশুর ঢোক গেলার শব্দও মা শুনতে পান। এছাড়া লক্ষ্য করলে বোঝা যায় যে শিশুর গাল ফোলা আছে অর্থাৎ ডেবে যাচ্ছে না।

অন্যদিকে, শিশু বুকের দুধ না পেলে অস্থির হয়ে যায়। জোড়ে জোড়ে টেনে দুধ খাওয়ার চেষ্টা করে। ফলে, গালদুটো ভিতরের দিকে দেবে যায়। এমনটা হলে খেয়াল করতে হবে উপরে দেখানো কোন নিয়মএর ব্যতয় ঘটছে কিনা। কোন ভুল পেলে শুধরে নিতে হবে। না বুঝলে স্বাস্থ্যকর্মী/ডাক্তার বা ল্যাকটেশন ম্যানেজমেন্ট সেন্টারে থাকা নার্সের সহায়তা নিতে হবে।

মায়ের দুধের উপাদানের তারতম্যঃ

Colostrum, foremilk and hindmilk

মায়ের বুকের দুধ তিন রকমের হতে পারে – শালদুধ (colostrum), প্রাথমিক দুধ (foremilk), শেষের দিকের দুধ (hindmilk)। শালদুধ শিশুর জন্মের প্রথম কয়েক দিন আসে। এরপর স্বাভাবিক যে দুধটা আসে সেটাই দুই রকম হয় প্রারম্ভিক দুধ ও শেষের দুধ।

প্রথম দিকের বা প্রারম্ভিক দুধ (Foremilk): এই দুধ শেষের দুধের চাইতে পাতলা, এটা বেশি পরিমানে তৈরি হয়। এতে প্রচুর আমিষ, শর্করা এবং অন্যান্য পুষ্টি উপাদান থাকে।

শেষের দুধ (Hindmilk): শেষের দুধ দেখতে সাদা হয় কারণ এতে অনেক চর্বি থাকে। এই চর্বি মায়ের দুধের বেশির ভাগ শক্তি সরবরাহ করে।

এই জন্যই শিশুকে একটি স্তনের সম্পূর্ণ দুধ খাওয়ানো শেষ করে পরের স্তনের দুধ খাওয়াতে হবে। যদি শিশুকে এক স্তনের দুধ সম্পূর্ণ না খাওয়ানো না হয় তাহলে পূর্ণ পুষ্টি পাবে না এবং শিশুর ওজন বৃদ্ধি হবে না।

1 thought on “শিশুকে মায়ের দুধ কিভাবে খাওয়াবেন?”

Leave a Comment